শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০৮:২১ পূর্বাহ্ন

বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে

অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী নতুন করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃত্যু ঘটেছে ২ লাখ ১০ হাজার জনের।

সোমবার রাতে জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির হালনাগাদ তথ্যে এসব খবর জানানো হয়। হালনাগাদ প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, আক্রান্ত ৩০ লাখের মধ্যে ৮ লাখ ৭৮ হাজারের বেশি মানুষ ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অর্থাৎ আক্রান্তদের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ সেরে উঠেছেন।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন আক্রান্তের প্রকৃত সংখ্যা আরো বেশি হবে। কারণ, মৃদু সংক্রমণে অনেকেরই লক্ষণ প্রকাশিত হয়নি, এমন অনেকেই রয়ে গেছে পরীক্ষার আড়ালে। ফলে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা ৩০ লাখের অনেক বেশিই হবে।

বিশ্বব্যাপী অবিশ্বাস্য দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতি এই ভাইরাস।সংক্রমণের পর আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছতে সময় লেগেছিল চার মাস, তার পরের ১০ লাখে সংক্রমিত হতে লাগল মাত্র দুই সপ্তাহ। আর তার পরের ১০ লাখে পৌঁছতে লাগল ১২ দিন।

সোমবার রাত নাগাদ যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৭৩ হাজার জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৫৫ হাজার জনের।

আক্রান্তের সংখ্যায় তার পরই রয়েছে স্পেন। দেশটিতে ২ লাখ ২৬ হাজার আক্রান্তের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৩ হাজার জনের।

ইতালি আক্রান্তের সংখ্যায় স্পেনের নিচে থাকলেও সেখানে মৃত্যু ঘটেছে বেশি। ইতালিতে প্রায় দুই লাখ আক্রান্তের মধ্যে মৃতের সংখ্যা ২৬ হাজার ৯৭৭ জন।

ফ্রান্স, জার্মানি, যুক্তরাজ্য ও তুরস্কেও আক্রান্তের সংখ্যা লাখের বেশি।

ফ্রান্সে ১ লাখ ৬২ হাজার আক্রান্তের মধ্যে মারা গেছে ২২ হাজার জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫৪ হাজার, মারা গেছে ২০ হাজারের বেশি।

জার্মানিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫৮ হাজার হলেও মৃত্যু তুলনামূলক কম, ৫ হাজার ৯৮৫ জন।

তুরস্কেও ১ লাখ ১০ হাজার আক্রান্ত হলেও মারা গেছে ২ হাজার ৮০০ জন।

আক্রান্তের সংখ্যায় চীনের (৮৩৯১২) উপরে আছে রাশিয়া (৮৭১৪৭) ও ইরান (৯১৪৭২)।

দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে ভারতে, এই সংখ্যা এখন ২৮ হাজারের বেশি। এর মধ্যে মারা গেছে ৮৮৬ জন।

পাকিস্তানে প্রায় ১৪ হাজার আক্রান্তের মধ্যে মারা গেছে ২৯২ জন।

বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছেছে, মারা গেছে ১৫২ জন।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার রোধে বিভিন্ন দেশ লকডাউনে যাওয়ায় ঘরবন্দি হয়ে পড়ে বিশ্বের প্রায় অর্ধেক মানুষ।

তবে পরিস্থিতির উন্নতির আভাস দেখা দেওয়ায় স্পেন, জার্মানিসহ বেশ কয়েকটি দেশ বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। ইতালিও সেই পথে যাচ্ছে।

তবে যুক্তরাজ্য এখনই লকডাউন তুলছে না জানিয়েছেন কোভিড-১৯ থেকে সেরে ওঠা দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

এই পর্যন্ত যে পৌনে ৯ লাখ রোগী করোনাভাইরাস মুক্ত হয়েছেন, তার মধ্যে স্পেনেই সবচেয়ে বেশি। দেশটির ১ লাখ ২০ হাজারের বেশি রোগী ইতোমধ্যে সেরে উঠেছেন।

আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হলেও সুস্থ হওয়ার দিক থেকে নাটকীয় সাফল্য দেখিয়েছে জার্মানি। দেশটিকে করোনাভাইরাস মুক্তের সংখ্যা ১ লাখ ১৪ হাজার ৫০০।

সবচেয়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রে ১ লাখ ৭ হাজার রোগী ইতোমধ্যে সেরে উঠেছেন। চীনে সেরে ওঠা রোগীর সংখ্যা ৭৮ হাজার ৩০৬ জন।

ইরানে ৭০ হাজার রোগী করোনাভাইরাসমুক্ত হয়েছেন। ইতালিতে সেরে ওঠা রোগীর সংখ্যা ৬৬ হাজার, ফ্রান্সে ৪৫ হাজার।

আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে বেলজিয়ামে। দেশটিতে আক্রান্ত ৪৬ হাজারের মধ্যে ৭ হাজারেরই মৃত্যু ঘটেছে। মৃত্যুর হার ১৫ দশমিক ৪ শতাংশ।

মৃত্যুর হারে তার পরে রয়েছে ফ্রান্স (১৪.১), ইতালি (১৩.৫), যুক্তরাজ্য (১৩.৫)।

আক্রান্ত ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বে শীর্ষে রইলেও মৃত্যুর হার সেখানে তুলনামূলক কম, ৫ দশমিক ৭ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি ১০০ আক্রান্তের মধ্যে প্রায় ৬ জনের মৃত্যু ঘটেছে সেখানে।


মুজিব বর্ষ

মুজিববর্ষ
© ২০১৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত সময়ের কন্ঠ লিঃ
কারিগরি সহায়তায় N Host BD